মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৪৯ অপরাহ্ন

পটুয়াখালীর দুমকীতে কবরস্থানের দেয়াল ভেঙ্গে মাঝরাতে পাকারাস্তা নির্মান।

স্টাফ রিপোর্টারঃ এইচ এম মোশারেফ হোসেন সুজন।
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১০ মার্চ, ২০২১
  • ৩৭০ বার পঠিত

পটুয়াখালী দুমকী উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নের চরগরবদী ৮নং ওয়ার্ডের আব্দুল হক হাওলাদারের পৈত্রিক স্বত্ব ভোগ দখলীয় সম্পত্তির উপর নবনর্মিত কবর স্থানের দেয়াল ভেঙ্গে জোরপূর্বক মাঝরাতে পাকারাস্তা নির্মানের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরেজমিন অনুসন্ধান ও পটুয়াখালী পুলিশ সুপার বরাবর ভুক্তভোগী আব্দুল হক হাওলাদারের করা লেখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ২১ ইং তারিখ স্থানীয় মৃত আব্দুল আজিজ হাওলাদারের ছেলে মোঃ খোকন হাওলাদার (৩৭), মৃত রেয়াত আলী হাওলাদারের ছেলে আবু হানিফ (৪৭)সহ মৃত রেয়াত আলীর আরো দুই ছেলে শহীদুল ইসলাম (৫০) ও সুলতান (৫৩) এবং একই দলীয় ভুক্ত হাসিব (১৮) ও নাজমুননাহার তানিয়া (৪৫) সহ অজ্ঞাতনামা আরো ৫০/৬০ জনের বেআইনী অস্ত্রধারী খোকন হাওলাদারের পেটোয়া বাহিনী কতৃক আব্দুল হক হাওলাদারের পৈত্রিক স্বত্ব ভোগ দখলীয় সম্পত্তির উপর নবনর্মিত কবর স্থানের প্রাচির ভেঙ্গে জোরপূর্বক মাঝরাতে পাকারাস্তা নির্মানের ঘটনাটি ঘটে। এ বিষয়ে ভুক্তভূগী আব্দুল হক হাওলাদার বলেন, আমার ভোগদখলীয় সম্পত্তির মৌজা জোয়ারগরবদী, জে এল নং ২৯- বি, এস খতিয়ান ৩৫৮ এর ৫৬২৪ দাগের জমি দির্ঘ দিন যাবত নিরস্কুশ ওয়ারিশ বিদ্যমান থাকিয়া ভোগদখল করিতেছি। উল্লেখিত জমিতে সদ্য পারিবারিক কবর স্থানের প্রাচির নির্মান করি। কিন্ত ভূমিদস্যুরা খুন জখমের ভয় দেখিয়ে রাতের আধারে প্রাচির ভেঙে রাস্তা নির্মানের চেষ্টা করে। আমি আমার পরিবারে সদস্যরা নিরুপায় হয়ে ৯৯৯ ফোন করি। আমাদের অভিযোগের ভিত্তিতে দুমকি থানা পুলিশের এস আই জাফর ও এএসআই মাসুদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। থানা পুলিশের নিরবতা টের পেয় পটুয়াখালী পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিলে পুনরায় পুলিশ সুপার ব্যবস্তা গ্রহন করতে দুমকি থানা পুলিশকে নির্দেশ প্রদান করেন। ভূমিদস্যুরা থানা পুলিশকে উপেক্ষা করে। এবিষয় সরেজমিনে দুমকি থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জের কাছে জানতে গেলে তাকে থানায় না পেয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে তিনি রিসিভ করেনি তবে এই ঘটনার তদন্ত অফিসার এসআই জাফরকেও থানায় না পেয়ে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে উভয় পক্ষকে সুষ্ঠু সমাধানের চেষ্টা করি কিন্তু রাতের আধারে প্রাচির ভাঙ্গার বিষয়টি আমি অবগত নই। সর্বিক বিষয়ে অভিযুক্তদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, এই সম্পত্তি আমরা ইতিমধ্যে বায়না সূত্রে ভোগ দখলের চেষ্টা করি। আমরা অনৈতিক কোন কর্মকান্ড করিনি। খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, অভিযুক্ত ব্যক্তিরা একই ভাবে গায়ের জোরে স্থানীয় সোনা গাজীর পৈত্রিক সম্পত্তি জবর দখলের পাঁয়তারা করছে। বিষয়টি নিয়ে সোনা গাজী ভূমিদস্যু খোকন হাওলাদার সহ তার পেটোয়া বাহিনী কতৃক জবর দখল রোধে গত ০৯ মার্চ ২১ ইং তারিখ দুমকি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..