বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০৬ অপরাহ্ন

জামালপুরে ভূমিদস্যু ও এসিল্যান্ড অফিসের যোগসাজশে জমি দখলের পাঁয়তারা।

আবু সায়েম মোহাম্মদ সা'-আদাত উল করীম:
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২০ মে, ২০২১
  • ৪৬২ বার পঠিত

জামালপুরে ভূমিদস্যু ও এসিল্যান্ড অফিসের অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের যোগসাজশে জমি দখলের পাঁয়তারার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মাহবুবা আক্তার নাসরীন নামের একজন নারী জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত ভাবে এই অভিযোগ দায়ের করেছেন।এসিল্যান্ড অফিসের অসাধু কর্মচারীদের প্ররোচনায় অবৈধ ভাবে জমি দখলের পাঁয়তারা ও হয়রানির প্রতিকার চেয়ে গত ১৬ মে তিনি প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট ১৬টি দপ্তরে অনুলিপি প্রদান করেছেন। আবেদন সূত্রে জানা যায় বিগত ২৯ অক্টোবর ২০২০ইং তারিখে জামালপুর পৌরসভার অন্তর্গত মুকন্দবাড়ী মৌজার সাবেক ২৩ , আর ও আর ৩৮ হাল/বি.আর এস ৭৪ নং দাগের ০৪.৯৩ শতাংশ ভূমি সাবকবলা মূলে নাছরিন জাহান, এর (স্বামী মোঃ নাসিরুল ইসলাম ) নিকট থেকে ভূমি ক্রয় করে মালিক হয়ে ভোগ দখলে আছেন। যার দলিল নং ১২২৫৮। পরবর্তীতে মিউটেশন কেইছ নং ৪৪৬৭ (IX-I) ২০২০-২০২১ মাধ্যমে সংশোধিত খতিয়ান নং ৬৫৮ এর মাধ্যমে ভূমি উন্নয়ন কর প্রদান করে দাখিলা ও ডি.সি.আর প্রাপ্ত হয়। ইতি পূর্বে নাসরিন জাহান, স্বামী মো. নাছিরুল ইসলাম, গ্রামঃ মির্জাপুর,পোঃ শাহবাজপুর,জামালপুর সদর, জামালপুর তিনি উক্ত ভূমি মোঃ আনোয়ার হোসেন বাবলুর (পিতাঃ মৃতঃ কমর উদ্দিন, গ্রামঃ বজ্রাপুর,থানা ও জেলাঃ জামালপুর) নিকট থেকে এওয়াজনামা মূলে গত ৩০মে ২০০৫ইং তারিখে মালিকানা প্রাপ্ত হয়ে ভোগ দখলে ছিলেন। যার দলিল নং ৭৯১৬। পরে তিনি উক্ত ৪.৯৩ শতাংশ ভুমিতে মিউটেশন কেইছ নং ২৫১৫ (IX-I) ২০১১-২০১২ মূলে সংশোধিত খতিয়ান নং ৩৯৩ এর বিপরীতে ভূমি উন্নয়ন কর প্রদান করে তিনি দাখিলা ও ডি.সি.আর প্রাপ্ত হয়েছেন। পরবর্তীতে মোঃ আনোয়ার হোসেন বাবলু ৭৯১৬ নং এওয়াজনামা দলিল বাতিল চেয়ে সিনিয়র সহকারী জজ আদালত, জামালপুরে ১০/২০১৯ইং মোকাদ্দমা আনয়ন করেন, যা আপোষ মিমাংশা মূলে(সোলেনামার মাধ্যমে) নাছরিন জাহানের স্বত্ব ও দখল বিদ্যমান থাকে। গত ০২ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৮ইং তারিখে মোঃ আনোয়ার হোসেন বাবলু উক্ত ভূমিটি পৈত্রিক সূত্রে এবং পারিবারি ঘরোয়া বন্টন এর মাধ্যমে প্রাপ্ত হন এবং ১৯ এপ্রিল ১৯৯৮ইং তারিখে জামালপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান ও ওয়ার্ড কমিশনার কর্তৃক উক্ত বন্টন পত্রটি সত্যায়ন করা হয়। পরর্বতীতে ১৯৯৭-৯৮ সনের ৬২৩(IX-I) নং মোকদ্দমা মাধ্যমে ভূমি নামজারী ও ২৭২ নং (সংশোধিত) খতিয়ান প্রাপ্ত হন। তিনি আরও বলেন,আমি উক্ত ভূমিটি ক্রয় করার পর হইতে মো. আনোয়ার হোসেন বাবলু ও আমিনুল ইসলাম বাচ্চু আমার কাছে চাঁদা দাবি করে। আমি চাঁদা দিতে অস্বীকার করাই আমার প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে এবং আমার স্বামীকে খুন জখম এর হুমকি প্রদান করে বলে যে চাঁদার টাকা না দিলে আমার ক্রয়কৃত ভূমিটি যে কোন মূল্যে বেদখল করবে। পরবর্তীতে এসিল্যান্ড অফিসের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় আমিনুল ইসলাম (বাচ্চু) এর নিজের নামে উক্ত ভূমিটি বিগত ৯ ডিসেম্বর ২০২০ইং তারিখে ৪৮০৮(IX-I) ২০২০-২০২১ নং জমা খারিজের মাধ্যমে ৬৬১ নং খতিয়ান প্রাপ্ত হন। পরবর্তীতে তিনি উক্ত বিষয় টি জানতে পারলে জামালপুর সদর এসিল্যান্ড অফিসে ৪৮০৮(IX-I) ২০২০-২০২১ খারিজটি বাতিলের জন্য আবেদন করিলে যাহা মিস মোকদ্দমা নম্বর ১৩২(XIII) ২০২০-২০২১ এর মাধ্যমে আমিনুল ইসলাম (বাচ্চু) এর ৪৮০৮((IX-I) ২০২০-২০২১ এই খারিজটি ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ইং তারিখে বাতিল করে। এরপরেও আবারও জামালপুর সদর এসিল্যান্ড অফিসে কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সহযোগীতার মাধ্যমে আমিনুল ইসলাম (বাচ্চু) তার নিজের নামে উক্ত ভূমিটি অবৈধভাবে খারিজ খতিয়ান খোলার চেষ্টা করে যাচ্ছে। তিনি আরও জানান, সেই সাথে আমি ও আমার স্বামী সন্তানসহ আমার পরিবারকে প্রতিনিয়ত খুন করে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি প্রাদান করে আসছে। সূত্রে জানা যায়, গত ১২ এপ্রিল ২০২১ইং তারিখে জামালপুর সদর থানায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরি করেন, যার নং ৬২৯। কিন্তু জামালপুর সদর থানা পুলিশ অদৃশ্য কারণে কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করে নাই। এর ফলে উক্ত ভূমিদস্যুরা আরও বেপরোয়া হয়ে হুমকি প্রাদান করতে থাকে। এরপর আবারও জীবন ও সম্পদের নিরাপত্তা চেয়ে গত ৩০ এপ্রিল ২০২১ইং তারিখে দিবাগত রাত প্রায় ১১.৩০ মিনিটে আরও একটি জিডি করেন যার নং ১৫৫৩।কিন্ত এরপরের দিন ১মে ২০২১ইং তারিখে সকাল আনুমানিক প্রায় ১০.৩০মিনিটে ভূমিদস্যু মো. আনোয়ার হোসেন বাবলু ও আমিনুল ইসলাম বাচ্চুসহ প্রায় শতাধিক সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে আমার ভূমির বসতবাড়ীতে হামলা চালিয়ে বসতবাড়ী ও বাউন্ডারির পাকা দেওয়াল সমূহ ভেঙ্গে চুরমার করে দেয় । বর্তমানে তিনি সন্ত্রাসীদের ভয়ে জীবন ও সম্পদের নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছি। বিষয়টি গণমাধ্যম অবগত হলে সেই ঘটনাটি বিভন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়। গত ২মে ২০২১ইং তারিখে সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যু মো. আনোয়ার হোনের বাবলু এবং আমিনুল ইসলাম বাচ্চু গং দের বিরোদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেন। তিনি বলেন অনেক পত্রিকায় আমার দুঃখকষ্টের কথা ছাপা হয়েছে, কিন্তু আমরা এখনও কোন প্রতিকার পাচ্ছি না। এমতাবস্থায় ৫মে ২০২১ইং তারিখে জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতির নেতৃত্বে উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে জুরিবোর্ড গঠন করে কাগজপত্র ও উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে আমার পক্ষে আইনগত মতামত প্রদান করেন। এতে প্রতিওমান হয় উক্ত কাজে ভূমিদস্যু ও এসিল্যান্ড অফিসের অসাধু কর্মকর্তাদের ইন্ধন সু-স্পষ্ট। মাহবুব আক্তার নাছরীন প্রধানমন্ত্রী সহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে লিখিত ভাবে আবেদন করে ন্যায় বিচার কামনা করেন। এই বিষয়ে ১৯মে বুধবার দুপুরে জামালপুর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি (এসিল্যান্ড) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাহমিনা আক্তার বলেন, বিষয়টি আমার নজরে এসেছে, অতি শীঘ্রই এই বিষয়ে সকল অনিয়মের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..