মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:০৯ অপরাহ্ন

চিতলমারী উপজেলার খাসেরহাট বাজারে আগুনে পুড়ে তিন টি দোকান ভস্ম।

সুষেন ঢালী, অনুভূতি টিভি, চিতলমারী প্রতিনিধি:
  • আপডেট টাইম : বুধবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৩৫১ বার পঠিত

রাত টি ছিলো বিদ্যার দেবী সরস্বতী পূজার রাত। দিবাগত রাত ২.৩০ টার সময় দোকান তিন টি আগুনে পুড়ে ছাই হয়।দোকানের পাশের বাড়ির দিপংকর বসুর স্ত্রীর দেয়া ভাষ্য মতে, তিনি প্রকৃতির ডাকে বাইরে আসলে তিন গুলির শব্দ শুনতে পেলে তার স্বামী কে ডাকে।তিনি স্ত্রীর কথা তোয়াক্কা না করে বলেন হয়তো পূজার রাতে কেউ হয়তো বা বাজি দিচ্ছে। কিন্তু দ্বিতীয় বার আবার তারা আরো দুটি শব্দ শুনতে পেলে তিনি তার স্ত্রীকে নিয়ে তিনি দোকানের দিকে আসলে তারা আগুন ও প্রচুর কালো ধোয়া দেখতে পায়।ধারনা করা হয় মশার কয়েল অথবা বিড়ির আগুনে দোকান গুলো পুুড়ে ছাই হয়। তাদের চিৎকারে এলাকার আরো লোক জড়ো হয়।তারা বিভিন্ন ভাবে আগুন নিভানোর চেষ্টা করে এবং পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে ফোন দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন বন্ধ করতে বলে। এর পর তারা ইউ এন ও স্যার কে ফোন দিয়ে জানালে তিনি ফায়ার সার্ভিস অফিসে ফোন দিয়ে বিষয় টি জানায়। কিন্তু দুঃখের বিষয় ফায়ার সার্ভিসের লোক আসতে না আসতে দোকান তিন টি পুড়ে ভস্মীভূত হয়ে যায়। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিকাশ বড়ালের দোকান। তিনি ছিলেন কৃষিতে সিনজেনটা কোম্পানির ডিলার। জানা যায় তিনি আগুন লাগার দু’ দিন আগে ৮ লক্ষ টাকা সার , ওষুধ, ফিসমিল ও বিভিন্ন কীটনাষক আনেন ।এছাড়া আরো ৮ বা ১০ লক্ষ টাকা র সার ওষুধ দোকানে ছিলো। দোকান দারের ভগ্নিপতির তথ্য মতে দোকানে নগদ ৪ লক্ষ টাকা ক্যাশে ছিলো। এদিকে পাশের দোকান টেইলার্স। সেখানে ছিলো অনেক টাকার সিট কাপড় এবং নগদ সাড়ে ৫ লাখ টাকা যেটা ব্যাংকে রাখার জন্য আগের দিন আনা হয়েছিলো। অন্য দোকান ছিলো টমেটোর গুদাম। অগুনে পুড়ার ঘটনা শুনে ঐ রাতেই সেখানে উপস্থিত হয়েছিলের চিতলমারী ইউএনও স্যার, উপজেলা চেয়ারম্যান স্যার,আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। তারা দোকানদারদের বিভিন্ন ভাবে আশ্বস্ত করেন এবং তাদের ক্ষতি পুরো না পারলেও কিছুটা পুশিয়ে দেয়ার চেস্টা করবেন।।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর..